প্রবেশিকা

**************************
আমি অত্র। আমি তত্র।
অন্যত্র অথবা –
আমার আরম্ভে আমি
নিশীথিনী, প্রভাতসম্ভবা।
**************************


[ পাঠক /পাঠিকার নিজস্ব বানানবিধি প্রযোজ্য ]

Thursday, November 3, 2022

বাদামি ঘোড়ার গল্প

 বাদামি ঘোড়ার গল্প





একজন বাদামিরঙ ঘোড়া
আমাদের এ গলী ধরে
হেঁটে যায় মধ্যরাতে
ধীরে সুস্থে
একা।
#
জানলা থেকে তাকে দেখে ভাবি
এ গলীতে ঘোড়া আছে কার?
কে ঘোড়া পুষতে পারে
আমাদের এ নুন-পান্তা-পাড়ার গলীতে?
বাদামি এ ঘোড়া যদি কারো পোষা, তবে
কোথায় চলেছে একা, এই মধ্যরাতে?
এই নুন-পান্তা-গলীতে
কোথায় সংকুলান হবে বাদামি বা
শাদা, কালো কোনোও ঘোড়ার? স্থান কোথা
নৈমিত্তিক জীর্ন অভিধানে?
রাতের বাতাস
বাদামি ঘোড়াকে ঘিরে
একাধিক খটকা নিয়ে আসে।
#
অশ্ব,জিন,খুর,অশ্বারোহী –--- এবম্বিধ শব্দগুলি
বাদামি এ ঘোড়াটির মতো, অপর গলীতে, ক্রমে,
মিশে গেলে পরে আমার খটকাগুলি নিয়ে
জানালাতে আমি থাকি, চালচিত্রে
হ্রেষা থাকে বাদামি ঘোড়ার



সপ্তর্ষি বিশ্বাস
০৩।১১।২২






Tuesday, November 1, 2022

এবার পুষ্প-ঋতু এলে

 এবার পুষ্প-ঋতু এলে

বলেছিলে পুষ্প ভালবাসো। সকল খামারে তাই
লাগিয়েছি গোলাপের চারা। নিয়োগ করেছি মালী —-
অন্তিম মোহর-মুদ্রা বিক্রি করে, কৃতান্ত-বাজারে।
এবার পুষ্প-ঋতু এলে, গোলাপ ফুটবে না'কি
কুঁড়ি ও পাপড়ি গুলি ভস্ম হবে, হয়ে যাবে ছাই —-
জানিনা। জানতে চাইনা। আমার সাঙ্গ হলো খেলা,
অন্যথায় কাজ। এইবারে আমি তবে যাই।
#
আবডালে পুষ্প নয়, তোমাকেই ভালবেসে আমি
বলেছি মিথ্যা কথা, নিয়েছি পুষ্প-পত্র-শাখার শরন।
তোমাকেই মুগ্ধ করতে পুড়িয়েছি প্রাকৃত খামার আর
গোলাপের চারা দিয়ে ঢেকেছি সকল ক্ষত, সমস্ত কফিন –---
যা'তে তুমি সারাদিন, সারারাত ধরে, থাকো মগ্ন পুষ্প-ক্রীড়াতে।
#
এবার পুষ্প-ঋতু এলে কুঁড়ি ও পাপড়ি গুলি পুষ্প না'কি হয়ে যাবে ছাই —-
জানিনা। জানতে চাইনা।আমার সাঙ্গ হলো খেলা। আমি যাই।


[শ্রীমতী মধুশ্রীকে]

সপ্তর্ষি বিশ্বাস
৩১।১০।২২ —- ০১।১১।২২



ঘুম ঘর